সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি – কিভাবে এসএইও করে – SEO in Bangla

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা(SEO) যেটাই বলি না কেন এটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ব্লগ বা ওয়েব সাইট কে মানুষের সামনে তুলে ধরার একমাত্র মাধ্যম হলো এটি। আপনি অনেক ভালো কনটেন্ট (Content) লিখতে পারেন তবুও আর্টিকেল গুলোতে পর্যাপ্ত পরিমানে ভিজিটর বা র‍্যাংক ( RANK) পাচ্ছেন না। এর কারণ মূলত হলো এসএইও সেক্টরে আপনার গুরুত্ব কম দেয়া।

আপনি যে স্থানেই কনটেন্ট তৈরি করেন না কেন প্রতিটি স্তরে আপনাকে এসএইও এর নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম মেনে কাজ করতে হবে। আপনি হয়তবা ইউটিউবার হতে চাচ্ছেন কিংবা ফেসবুকে ভিডিও মার্কেটার যেখানেই যান না কেন এসএইও আপনাকে শেখা লাগবেই।

আপনার তৈরি করা কনটেন্ট গুলোকে মানুষের সামনে তুলে ধরবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা (SEO) . সার্চ ইঞ্জিন কে আপনি কিভাবে অপ্টিমাইজ করে আপনার আর্টিকেল বা ভিডিও কে চেনাচ্ছেন সেটাই অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আর্টিকেলের কোয়ালিটি এর পাশাপাশি আপনাকে ভালোভাবেই সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজড করে নিতে হবে। তাছাড়া আপনার ব্লগ আর্টিকেল টি কখনোই র‍্যাংকে বা মানুষের মাঝে ছড়াবে না।

প্রিয় পাঠক গন, অনেকদিন পরে লিখতে বসলাম আপনাদের জন্য এসএইও / সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন নিয়ে। অনেক নতুন ব্লগার এই রয়েছেন যারা এ সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে না বুঝেই ব্লগিং করে ব্যার্থতায় ভুগেন। এসএইও সম্পর্কে রেগুলার আমরা প্রতিটি ধাপ আপনাদের সামনে আলোচনা করার চেষ্টা করব। তো বেশি ভনিতা না করে চলুন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর চৌদ্দ গোষ্ঠি উদ্ধার করি।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি – What is SEO in Bangla

মূলত (SEO) ইংরেজি শব্দের পূর্নরুপ হলো “Search Engine Optimization“. আমরা মোটামুটি সকলেই সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে খুটি নাটি জানি। সার্চ ইঞ্জিন হলো যেখান থেকে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য সার্চের মাধ্যমে পেতে পারেন। বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু সার্চ ইঞ্জিন হলো – গুগল, বিং, ইয়াহু। এ ছাড়াও অনেক সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে তবে এগুলো অনেক জনপ্রিয়।

ইন্টারনেটে যে কোনো ধরণের তথ্য খোজার জন্য আমাদের সার্চ ইঞ্জিন এর প্রয়োজন পরে। আমরা যখন কোনো কিছু লিখে গুগলে সার্চ করি আমাদের সামনে অনেক গুলো নির্ধারিত ফলাফল চলে আসে। মূলত সার্চ ইঞ্জিন এর মাধ্যমে আপনি আপনার ব্লগে ভিজিটর বাড়াতে পারবেন সহজেই ও আর্গানিক ভাবে।

যখন আমরা কোনো কিছু সার্চ দেই তখন প্রথম যে ওয়েবসাইট টি থাকে সেটিকে বলা হয় র‍্যাংক ওয়েবসাইট। বেশিরভাগ তথ্য খোজা লোক এই প্রথম ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবে। এখন যার ওয়েবসাইট একদম শেষের অবস্থানে আছে তার ওয়েবসাইটে কেউ যেতে চাইবেনা কারণ স্বাভাবিকভাবেই সে প্রথম ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তার চাহিদা অনুযায়ী তথ্য পেয়ে গেছে।

সার্চ ইঞ্জিন গুলো বিভিন্ন ধরণের নিয়ম অনুযায়ী আর্টিকেল গুলোকে র‍্যাংক প্রদান করে। এগুলোকে এসএইও এর প্রধান ফ্যাক্টর ও বলা যেতে পারে। কোনো আর্টিকেল র‍্যাংক হওয়ার পিছনে সেটার সার্চ ইঞ্জিন অনুযায়ী অপটিমাইজেশন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ব্লগ কে যদি সঠিক ভাবে র‍্যাংক করাতে চান তবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর দিকে ভালোভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কত প্রকার – Types of SEO in Bangla

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসএইও মূলত ৩ টি ভাবে ভাগ করা যায়।

  • অন পেজ এসএইও ( On page SEO)
  • অফ পেজ এসএইও ( Off page SEO)
  • লোকাল এসএইও ( Local SEO)

অন পেজ এসইও কি – What is On page SEO

অন পেজ এসইও মূলত আপনাকে ব্লগের মধ্যে করতে হবে। কী-ওয়ার্ড বাছাই করে আর্টিকেল লিখতে হবে। LSI কী-ওয়ার্ড দিতে হবে। ওয়েবসাইটের স্পিড, নেভিগেশন, এসএইও ফ্রেন্ডলি ডিজাইন ইত্যাদির মাধ্যমে ভালোভাবে করতে হবে।

অন পেজ এসইও কিভাবে করব – How to Do on page SEO

১- ওয়েবসাইট স্পিড অপ্টিমাইজড

যখন আমরা সার্চ ইঞ্জিনে (Search Engine) কোনো কিছু লিখে সার্চ করি তার মধ্যে যে ওয়েবসাইটের স্পিড সবচেয়ে দ্রুত থাকে সেটাতেই মানুষ ঢুকতে আগ্রহী হয়। আপনার ওয়েসাইটে ঢুকতে যদি ৬ সেকেন্ডের বেশি সময় নেয় তবে সেটা অবশ্যই এসএইও এর ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

বিভিন্ন প্লাগিন (Plugin) এর মাধ্যমে সহজেই আপনি ওয়েবসাইটের স্পিড ঠিক রাখতে পারবেন। আপনার হোস্টিং কোম্পানি বা প্যাকেজ যদি ভালো না হয় তবে এই সমস্যা অনেক বেশি মোকাবিলা করতে হবে যেটাতে আপনার আর্টিকেল গুলো আসতে আসতে র‍্যাংক থেকে সরে যাবে।

২- এসএইও ফ্রেন্ডলি টেমপ্লেট ব্যবহার করুন

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে এটিও গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ওয়েবসাইটের ডিজাইন যদি এসএইও ফ্রেন্ডলি না হয় তাহলে সার্চ ইঞ্জিনে আপনি কখনো র‍্যাংক করতে পারবেন না । অতিরঞ্জিত টেমপ্লেট ব্যবহার না করে সাদামাটাভাবে সিম্পল টেমপ্লেট ব্যবহার করতে পারেন।

৩- এসএইও ফ্রেন্ডলি আর্টিকেল লেখা

আর্টিকেল লেখার পূর্বে নির্দিষ্ট টপিক/ কী-ওয়ার্ড বাছাই করে সেটাকে ভালোভাবে রিসার্চ করে নিবেন। নিজের মত করে ইউজার ফ্রেন্ডলি কনটেন্ট লিখবেন। আপনার পোষ্টের “টাইটেল ট্যাগ” ( Title Tag) এর মধ্যে অবশ্যই ফোকাস কী-ওয়ার্ড দিবেন। ” মেটা ডিস্ক্রিপশন ” ব্যবহার করতে হবে এবং সেখানেও কী-ওয়ার্ড দিতে হবে।

ফোকাস কী-ওয়ার্ড এর পাশাপাশি যদি বাড়তি তথ্য দেয়ার প্রয়োজন হয় তবে রিলেটেড বা LSI কী-ওয়ার্ড (h1-h2-h3-h4) ইত্যাদি দিতে হবে। কোথাও থেকে কোনো রেফারেন্স দিলে সেটার লিংক দিয়ে দিতে হবে। কনটেন্ট এর মধ্যে “পার্মালিংক ” করতে হবে। অধিক তথ্য দেয়া থাকলে তথ্য অনুযায়ী “ট্যাগস ” ব্যবহার করতে হবে। পাশাপাশি চেষ্টা করবেন আর্টিকেলের মধ্যে সম্পর্কিত ছবি যুক্ত করতে।

৪- LSI কী-ওয়ার্ড যুক্ত করা

আপনি আর্টিকেল লেখার জন্য যে কী-ওয়ার্ড টি বাছাই করবেন সেটার উপর যত গুলো রিলেটেড কী-ওয়ার্ডআছে সব গুলা হেডিং দিয়ে পর্যাপ্ত পরিমানে তথ্য দেয়ার চেষ্টা করবেন।

অফ পেজ এসএইও – Off Page SEO Bangla

অফ পেজ এসএইও টা সম্পুর্ন বিপরিত ভাবে কাজ করে অন পেজ এসএইও এর। আমাদের অব পেজ এসইও তে ব্লগের মধ্যে কাজ করতে হয় কিন্তু অফ পেজে ব্লগের বাহিরে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর কাজ গুলো সম্পন্ন করতে হবে।

আপনার ব্লগের প্রচারনার বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন ধরণের ব্যাকলিংক বিল্ড করতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলোতে যুক্ত হয়ে আপনার আর্টিকেল বা ব্লগ গুলিকে পাবলিশ করতে হবে।

অফ পেজ এসএইও কিভাবে করে – How to do Off Page SEO

অফ পেজ এসএইও ব্লগের জন্য অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। নিচে থেকে দেখে নিন কিভাবে সহজেই অফ পেজ এসএইও করতে পারবেন –

১- সাইটম্যাপ সাবমিট

প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিন এ আপনার ওয়েবসাইট যুক্ত করার প্রধান মাধ্যম হলো সার্চ কনসোলে সাইট ম্যাপ যুক্ত করা। সার্চ কনসোল যখন আপনার সাইটম্যাপ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে যাবে তখন আপনার ব্লগ টি দ্রুত সার্চ ইঞ্জিনে ইন্ডেক্স হয়ে যাবে।

২- সোশ্যাল শেয়ার

আপনার ওয়েবসাইটের টাইটেল অনুযায়ী প্রতিটি সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে একই টাইটেল দিয়ে বিভিন্ন প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। এর মাধ্যমে আপনি ব্যাকলিংক ও নিতে পারবেন।

৩- প্রশ্নোত্তর সাইট থেকে ব্যাকলিংক

আপনার ওয়েবসাইট কে ভালো পজিশন আনার জন্য ভিজিটর এর ভুমিকা অনেক বেশি। ভিভিন্ন ধরণের প্রশ্নউত্তর সাইট রয়েছে সেগুলোতে আপনার কাংখিত আর্টিকেল দিয়ে আপনার সাইটের লিংক দিতে পারেন।

৪- অন্যের সাইটে কমেন্ট করুন

আপনার রিলেটেড ব্লগ গুলির কমেন্ট সেকসনে আপনার সাইটের লিংক সহ মন্তব্য করুন। অবশ্যই অতিরিক্ত করবেন না। প্রয়োজন অনুযায়ী আপনার সাইট লিংক যুক্ত করে দিবেন।

৫- ছবি শেয়ার

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন
Pinterest

আপনার তৈরি করা ইমেজ গুলো বিভিন্ন ধরনের ইমেজ শেয়ারিং প্লাটফর্ম যেমন- pinterest, stock photo ইত্যাদি সাইটে পোষ্ট করুন। ইমেজ এর মাধ্যমে আপনার ব্লগে অনেক ভিজিটর পেয়ে যাবেন।

৬- গেস্ট পোষ্ট

বিভিন্ন ধরণের ওয়েবসাইটে আপনি যেয়ে গেস্ট পোষ্ট লিখতে পারেন। লেখার একদম শেষে আপনার ব্লগের লিংক যুক্ত করে দিবেন। এতে আপনার ব্লগের অথরিটি বেড়ে যাবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এ এটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

লোকাল এসএইও – Local SEO in Bangla

লোকাল এসএইও সাধারণত কোনো নির্দিষ্ট স্থান কে টার্গেট করে করা হয়। ধরুন, আপনার একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আছে ঢাকাতে। আপনি একটি পণ্যের সেবা /মান শুধু ঢাকার মানুষ কেই দেখাতে চাচ্ছেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে শুধু লোকাল এসএইও করলেই হবে। আপনার নির্ধারিত বিষয় টি শুধু ঢাকার মানুষের সামনেই থাকবে।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন
লোকাল এসএইও

এসএইও এর কয়েকটি দিক

এসইও এর ক্ষেত্রে আপনাকে প্রধান কিছু বিষয়ের উপর লক্ষ্য রাখা জরুরি। এ সকল ধাপ গুলো যদি ভালোভাবে করতে পারেন তবেই আপনি এসইও তে পারফেক্ট ফলাফল পাবেন –

১- ব্যাকলিংক

এসএইও এর গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয় হলো ব্যাকলিংক। আপনার ডোমেইন এর অথরিটি ( DA) বাড়াতে সহায়তা করে। আমরা যখন একটা নতুন ডোমেইন নিয়ে কাজ শুরু করি সেটার ভ্যালু গুগলের কাছে থাকেনা। কিন্তু আপনি যদি ভালো ভালো সাইট থেকে আপনার ওয়েবসাইটের লিংকিং করাতে পারেন সেক্ষেত্রে গুগল এলগরিদম অনুযায়ী আপনার সাইটের একটি ভ্যালু তৈরি হবে।

২- টাইটেল

টাইটেল ট্যাগ যে কোনো ওয়েবসাইটের নাম হিসেবে ধরা হয়। মানুষ কোন বিষয় টি সার্চ করবে সেটা টাইটেল ট্যাগে রাখতে হবে।

৩- কী-ওয়ার্ড ডেনসিটি

একটি আর্টিকেলের মধ্যে কতবার আপনি আপনার ফোকাস কী-ওয়ার্ড ব্যবহার করছেন সেটা। অতিরিক্ত ব্যবহার করলে সেটা স্পাম হয়ে যাবে। চেষ্টা করবেন ৫০০ শব্দের আর্টিকেলে অন্তত ৫ বার ফোকাস কী-ওয়ার্ড টি আর্টিকেলে রাখার জন্য।

এসএইও কোর্স – SEO cours

এসএইও এর উপর প্রচুর কোর্স পাওয়া যায়। আপনি যদি সার্চ ইঞ্জিন অপটাইজেসন এর উপর বিস্তারিত ভাবে ধারণা পেতে চান তবে কোর্স করা সবচেয়ে ভালো হবে। এসএইও এর জন্য বাংলাদেশ বা ভারতের প্রচুর পরিমানে ইনফ্যুলেন্সর আছে। তবে, আপনার কাছে যদি কোর্স ক্রয়ের মত টাকা না থাকে তাহলে ইউটিউব বা অন্য কোনো সোর্স এর মাধ্যমে, প্রতিদিন প্রাক্টিস এর মাধ্যমে শিখতে পারেন।

আমাদের শেষ কথা

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন পোষ্টে আমরা এসএইও এর ব্যাসিক ফর্মুলা তুলে ধরলাম। দেখুন, এসএইও অনেক বিস্তৃত আর এগুলা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ধারায় চলে। প্রতি আপডেট এর সাথে সাথে নিজেকেও আপডেট রাখতে হবে। আশা করি এসএইও এর ব্যাসিক কিছু জ্ঞান আপনাদের মাঝে শেয়ার করতে পেরেছি।

About admin

In a world where you can have everything. Be a giver first. My hobbies are writing , gaming, and SEO 😊

View all posts by admin →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *