মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার – সেরা ৫ টি এন্টিভাইরাস

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যারমোবাইল কে ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত রাখতে নিয়মিত সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ভাইরাস গুলোকে সরিয়ে ফেলতে হবে। অনেকেই মোবাইল অনেক বেশী স্লো হয়ে যাওয়ার সমস্যায় ভুগে থাকেন। মোবাইলে অনেক বেশী থার্ড পার্টি এপস ব্যাবহার করার কারনে মোবাইল স্লো হতে শুরু করে করে দেয়। আপনার অতিরিক্ত স্টোরেজ কে দখল করে রাখে এগুলো।

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এর মাধ্যমে এসকল ভাইরাস সম্বলিত এপ বা ডাটা কে চিহ্নিত করে ডিলিট বা ক্লিয়ার করে দেয়া যায়। মোবাইলের স্পিড বাড়াতে নিয়মিত জাংক ফাইল গুলো ক্লিয়ার রাখা অবশ্যই প্রয়োজনীয়। অনেকেই আমরা বিভিন্ন ধরনের পেইড এপস গুলোর মোডেড করা ভার্সন গুলো ব্যবহার করে থাকি। যেগুলোতে ভাইরাস অনেক সময়ে থাকে। যা আপনার আর আপনার মোবাইলের জন্য সমান ভাবে বিপদজনক।

প্রিয় পাঠক আমাদের আজকের পোষ্টে আপনাদের জানাবো, মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার গুলো সম্পর্কে। মোবাইলের ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার সম্পর্কে অনেকেই গুগলে খুজে থাকেন। আপনার সময় বাচাতে আর বেশী না খুঁজে পড়ে ফেলুন আজকের আর্টিকেল। কারন, আমাদের এক আর্টিকেলে পাবে সেরা ০৫ টি মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এর তালিকা। আপনার পছন্দ অনুযায়ী যে কোনো একটি সফটওয়্যার গুগল প্লে স্টোর এর মাধ্যমে ইন্সটল করে নিয়ে মোবাইল কে সুরক্ষিত অবস্থায় রাখতে পারেন।

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার

সাধারণত আমাদের ফোন গুলোতে স্বয়ংক্রিয় ভাবে মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার ইন্সটল করা থাকে। যে কারনে আপনি যদি প্লে স্টোর ব্যাতিত কোনো গেম, অ্যাপস ব্যাবহার করতে যান তখন ইন্সটল এর সময়ে আটকে দেয়া হয়। আপনি যদি গুগল প্লে স্টোর ব্যাতিত কোনো অ্যাপস মোবাইলে ইন্সটল করেন তাহলে সেটাতে ভাইরাস থাকার সম্ভাবনা অনেক বেশী। কারন হিসেবে যদি বলি, প্লে স্টোর কোনো মোড ভার্সন, ক্রাক ভার্সন বা ভাইরাস জনিত কোনো তাদের স্টোরে স্থান দেয় না।

আরো পড়ুনঃ ইংরেজি শেখার সহজ উপায় – ইংরেজির শেখার ধাপ গুলো জেনে নিন

কিন্তু দেখা যায় আমরা অনেকেই প্লে স্টোর থেকে অ্যাপস ইন্সটল করলেও নানান ধরনের ফাইল আমরা আমাদের স্টোরেজে ডাউনলোড করে রাখি যেগুলোতে সাধারণত ভাইরাস থাকতে পারে। যা আপনার ফোন কেও স্লো করে দিতে সক্ষম। এসকল ফাইল গুলোকে চিহ্নিত করে ডিলিট করা অনেক কঠিন কিন্তু মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এর মাধ্যমে অল্প সময়ের মধ্যে সেটিকে স্ক্যান করে বের করে ফেলা সম্ভব।

সেরা ৫ টি মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার

মোবাইলে ভাইরাস কাটার জন্য অনেক অ্যাপস প্লে স্টোরে থাকলেও সেরা অ্যাপস গুলোতে অনেক ধরনের অতিরিক্ত সুবিধা লক্ষ্য করা যায়। তাই নিচে আমরা সেরা ৫ টি মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এর তালিকা দিয়ে দিলামঃ-

1- Avast Antivirus & Security

এই সফটওয়্যার টি দিয়ে সহজেই মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এর কাজ করা যায়। এটি ২০১১ সালে গুগল প্লে স্টোরে পাবলিশ করা হয়। যেহেতু অনেক পুরাতন সময় ধরে তারা ভালো মানের সেবা দিচ্ছে এটি ব্যাবহার করতে পারেন৷ এই অ্যাপস টি ব্যাবহার করতে হলে আপনার এন্ড্রয়েড ভার্সন ৬.০ থাকতে হবে। ইতিমধ্যে এটি প্রায় ১০০ মিলিয়ন এর অধিক বার ইন্সটল করা হয়েছে৷ প্রিমিয়াম ও ফ্রি সেবা উপভোগ করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ ওয়ালটন রাইস কুকারের দাম কত – Walton Rice Cooker Price in Bangladesh

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এভাসট এ আপনি ফ্রি যে সেবা গুলো পাবেনঃ- এন্টিভাইরাস ইঞ্জিন, এন্টি থেপট, হ্যাক চেক, ফটো ভোল্ট, ফাইল স্কানার, র‍্যাম বুস্ট, জাংক ফাইল ক্লিনার, ওয়েব শেইল্ড, ওয়াফাই সিকুরিটি, অ্যাপ ইনসাইড, ভাইরাস ক্লিনার, মোবাইল সিকিউরিটি, ওয়াফাই স্পিড টেস্ট। প্রিমিয়াম ক্রয় করে যদি ব্যাবহার করেন এগুলোর সাথে বাড়তি সুবিধা পাবেন- অ্যাপ লক, এডস ফ্রি, সাপোর্ট সেন্টার, লোকেশন চেকিং ইত্যাদি।

2- Kaspersky Security & Antivirus

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার হিসেবে এই সফটওয়্যার টি অনেক বেশী জনপ্রিয়। তাদের দাবী তারা ২০ বছরের বেশী সময় ধরে তাদের সার্ভিস প্রদান করতেছে। সারাবিশ্বে প্রায় ৫০০ মিলিয়ন এর অধিক মানুষ তাদের সফটওয়্যার ব্যাবহার করে থাকে। এটি ব্যাবহার করতে আপনার ফোনের এন্ড্রয়েড এর ভার্সন মিনিমাম ৫.০ থাকতে হবে। এটি প্লে স্টোরে রিলিজ করা হয় ২০১১ সালে। এ পর্যন্ত ৫০ মিলিয়ন এর বেশী প্লে স্টোর থেকে ইন্সটল করা হয়েছে। মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার খুজে থাকলে এটি ব্যাবহার কর‍তে পারেন। এ সফটওয়্যারে আপনি যে সকল ফিচার পাবেন তা হলো-

এন্টি ভাইরাস প্রটেকশনঃ আপনার মোবাইল কে সবসময় স্ব্যান করে ভাইরাস সম্বলিত ফাইল গুলোকে চিহ্নিত করে স্বয়ংক্রিয় ভাবে ডিলিট করে দিবে। ব্যাকগ্রাউন্ড চেকঃ আপনি যদি কোনো অ্যাপস ব্যাকগ্রাউন্ডে চালাতে যান এবং সেটিতে যদি কোনো ম্যালওয়্যার থাকে তাহলে মোবাইল মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার টি চিহ্নিত করে নিবে। আপনার ডিভাইস যদি হারিয়ে যায় অন্য ফোন থেকে একই এন্টিভাইরাসে লগ ইন করে সেটার লোকেশন জানা যাবে।

এই সফটওয়্যার টি ব্যাবহার করে আপনার প্রয়োজনীয় এপ গুলোকে লক করে রাখতে পাবেন। এ ছাড়াও সেফ ব্রাউজিং, সেফ মেসেজিং, ভিপিএন, ডাটা লিক চেক, সোশ্যাল প্রাইভেসি, ডিভাইস নেটওয়ার্ক ফিচার গুলো ব্যাবহার করতে পারবেন।

3- Safe Security – Antivirus, Booster, Phone Cleaner

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার জন্য এটি ও একটি ভালো মানের সফটওয়্যার গুলোর মধ্যে একটি। আপনার ফোনের এন্ড্রয়েড ভার্সন যদি ৪.১ হয় তাহলে ব্যাবহার করা যাবে। ২০১৩ সালে প্লে স্টোর এ পাবলিস করা এই সফটওয়্যার টি ১০০ মিলিয়ন এর অধিক বার ইন্সটল করা হয়েছে। অ্যাপস টির মধ্যে অনেক গুলো ফিচার আছে যা দিয়ে আপনি সহজেই আপনার ফোনের ভাইরাস ডিলিট করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ ১০ হাজার টাকায় ২৫ টি ব্যবসার আইডিয়া – 2022

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার হিসেবে এটিতে যে সকল ফিচার পাবেন- মোবাইলের স্পিড বুস্টিং, স্মার্ট ব্যাটারি সেভিং, ভাইরাস রিমুভার, সিকুরুটি এন্টিভাইরাস, জাংক ফাইল ক্লিনার, ফাংশনাল লক স্কিন, ওয়াইফাই সিকিউরিটি, প্রাইভেসি, স্নাপ ফটো, অ্যাপ ম্যানেজার, ফিংগারপ্রিন্ট লক, রিয়্যেল টাইম প্রটেকশন।

4- AVG protection

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার হিসেবে এটি মোটামুটি ভালো মানের একটি সফটওয়্যার। আপনার ফোনের এন্ড্রয়েড ভার্সন যদি ৫.০ থাকে এটি ব্যাবহার করতে পারবেন ফোনে। ২০১৩ সালে প্লে স্টোর এ পাবলিশ করা এই অ্যাপস টি ইন্সটল হয়েছে ১০ মিলিয়ন এর অধিক বার। ফোন কে ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত রাখতে এই সফটওয়্যার টি ব্যাবহার করতে পারেন৷

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার এটির মধ্যে যে সকল ফিচার পাবেন তা হলো- ভাইরাস স্ক্যান, ওয়েবসাইট স্ক্যান, ওয়াইফাই স্ক্যানার, ভিপিএন প্রটেকশন, ব্যাকরাউন্ড অ্যাপস ক্লোজার, গুগল ম্যাপস ফোনের লোকেশন, হাইড পারসোলান গ্যালারি, ফোনের সাউন্ড সিস্টেম পরিবর্তন ইত্যাদি ছাড়াও অনেক ধরনের ফিচার উপভোগ করতে ব্যাবহার করতে পারেন এই সফটওয়্যার টি।

5- APUS Security: Antivirus Master

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার হিসেবে জনপ্রিয় সফটওয়্যার গুলোর মধ্যে এটি একটি। ২০১৭ সালে প্লে স্টোর পাবলিশ হয়েছে এটি। এ পর্যন্ত ১০ মিলিয়ন এর অধিক বার ইন্সটল করা হয়েছে। আপনার ফোনের এন্ড্রয়েড ভার্সন যদি মিনিমাম ৫.০ থাকে তাহলে এটি ব্যাবহার করতে পারবেন। অন্যান্য সফটওয়্যার গুলোর মতোই এটাতেও ফিচার এর নেই কোনো ঘাটতি।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের সবচেয়ে কম দামে ল্যাপটপ 2022

এ সফটওয়্যার এর মধ্যে যেসব ফিচার আপনারা পাবেন তা হলো- এন্টি ভাইরাস ও ফাইল ক্লিনার, জাংক বা ক্যাচি ফাইল ক্লিনার, ফোন বুস্টার, ব্যাটারি সেভার, সিপিউ কুলার, মেসেজ সিকিউরিটি, অ্যাপস লক, নোটিফিকেশন ক্লিনার ইত্যাদি ছাড়াও অনেক ফিচার রয়েছে সফটওয়্যার টি তে।

আমাদের শেষ মন্তব্য

মোবাইল ভাইরাস কাটার সফটওয়্যার পোষ্টে আমরা এ সময়ের জনপ্রিয় ০৫ টি ভালো সফটওয়্যার নিয়ে আলোচনা করলাম। সফটওয়্যার গুলো আপনারা প্লে স্টোরে সহজেই পেয়ে যাবেন। আপনার ফোনের স্পিড বাড়াতে এগুলো ব্যাপক ভাবে সহায়তা করবে৷ ভাইরাস থেকে ফোন কে সুরক্ষিত রাখার জন্য এগুলার যে কোনো একটা ব্যাবহার করলেই হয়ে যাবে। এতক্ষন ধরে আর্টিকেল টি পড়ার জন্য ধন্যবাদ৷

About admin

In a world where you can have everything. Be a giver first. My hobbies are writing , gaming, and SEO 😊

View all posts by admin →

Leave a Reply

Your email address will not be published.