পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়া ৫টি উপায়

পড়াশোনায় মনোযোগী

পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়া ৫টি উপায়

বর্তমান সময়ে দেখা গেছে যে ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনায় মনোযোগী হয়ে উঠেছে। আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে কয়েকটি টিপস জানানো হবে যেগুলো ব্যবহার করে আপনি আপনার পড়াশোনায় মনোযোগ বাড়াতে পারবেন।

 

পড়াশোনায় মনোযোগী
গবেষণায় দেখা গেছে, নীরব নিস্তব্ধ অবস্থায় পড়ায় অধিক মনোযোগ থাকে। ব্যায়াম বা খেলাধুলা পড়াশোনায় মনোযোগী বাড়াতে খুব কার্যকর। সারাদিনে একটা সময় অনন্ত ১ ঘণ্টা ব্যায়াম অথবা খেলাধুলা করা এতে মাইন্ড প্রেস থাকে এবং পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়া যায়। আর খেলাধুলা অথবা ব্যায়াম এর জন্য আপনি বিকেলকে নির্ধারণ করতে পারেন।

 

নিচে পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়া কয়েকটি হওয়ার কয়েকটি উপায় দেওয়া হলো-

 

১. জীবনের লক্ষ ঠিক করা

২. পড়ার রুটিন তৈরি করা

৩. চেয়ার-টেবিলে বসে পড়ার অভ্যেস তৈরি করা

৪. টারগেট বা মিশন সেট করে পড়াশোনা করা

৫. যখন মনোযোগ বসে তখন পড়ুন

 

উপরের এই কয়েকটি টিপস মাথায় রেখে যদি আপনি লেখাপড়া শুরু করেন তাহলে কয়েক মাসের মধ্যে আপনি পড়াশোনায় মনোযোগী হয়ে উঠবেন। নিচে এই বিষয় গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো-

 

এই বষয়ে আরো ভালো করে জানতে হলে নিচের এই লিংটি ক্লিক করুণ

 

>>  পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়া ৫টি উপায়

 

১. জীবনের লক্ষ ঠিক করা

পৃথিবীর প্রতিটা ছাত্রছাত্রীর পড়াশোনায় মনোযোগী না হওয়া মূল কারন হলো আমি কেন পড়ছি। পড়াশোনা করে কি লাভ হবে আমার। যতদিন না আপনি এই মনোভাবকে পরিবর্তন করতে পারবেন না তত দিন আপনি পড়াশোনায় মনোযোগী হয়ে উঠতে পারবেন না।

এজন্য আপনাকে আগে জীবনের লক্ষ ঠিক করতে হবে। শুধু পড়াশোনা নয় যে কোনো কাজে যদি লক্ষ ঠিক রাখা যায় তাহলে সেই কাজ সঠিক ভাবে পরিপূর্ণ করা যায় খুব সহজেই।

আপনি যদি টিন্তা করেন আমি আগামি দিনের পড়ার শেষ করবো তাহলে আপনি শুধু সেই দিনের পড়ায় শেষ করাতে পারবেন। আর যদি মনে কনে আমি কোনো করম আগামি দিনটা পার করতে চায় তাহলে সেটিও শেষ করতে পারবেন না।

আসলে আমাদের প্রত্যেকেরই জীবনের একটা লক্ষ ঠিক করা প্রয়োজন। শুধু মাত্র পরিক্ষায় পাশ করার টার্গেট নিয়ে লেখাপড়া করাটা পড়াশোনায় মনোযোগীহওয়ার জন্য যথেষ্ট নয়। আশা করি বিষয়টি আপনার সকলেই বুঝতে পেরেছেন।

 

২. পড়ার রুটিন তৈরি করা

রুটিন শব্দটা শুনলেই মনে এক ধরনের বিরক্তি সৃষ্টি হয়। কিন্তু পড়াশোনা ধরে রখতে হলে রুটিনের কোনো বিকল্প নেই। পৃথিবীতে যা কিছু ঘটে সবকিছু রুটিন অনুযায়ী হয়ে থাকে।

আমাদের মধ্যে বেশিরভাগ ছাত্রই কয়েকদিন পরপর রুটিন তৈরি করে। কিন্তু কয়েকটিদন মানার পর সেই রুটিন মানতে আর ভালো লাগে না। আপনি যদি লেখাপড়ায় মনোযোগী হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে আগে বিজ্ঞান সম্মত এটি রুটিন তৈরি করে তারপর সেই রুটিন অনুযায়ী পড়তে হবে।

 

৩. চেয়ার-টেবিলে বসে পড়ার অভ্যেস তৈরি করা

পড়াশোনায় মনোযোগী হওয়ার তিন নাম্বার উপায় হলো চেয়ার- টেবিলে বসে পড়াশোনা করা। আমাদের মধ্যে বেশির ভাগ ছাত্রছাত্রী খাটে বসে পড়ে, আর এজন্য তাদের পড়াশোনায় মন বসতে চায় না।

পড়াশোনা থেকে অন্য মনস্ক হয়ে যাওয়ার একটা কারণ হলো টেবিলে বসে না পড়া। আপনি পড়ুন আর না পড়ুন একটি নির্দিষ্ট সময় চেয়ারে বসে পড়ার অভ্যাস তৈরি করুন। পড়তে বসার পূর্বে টেবিলকে সুন্দর মতো গুছিয়ে নিন। আর খাতা, কলম, বই ইত্যাদি প্রয়োজনীয় জিনিস হাতের কাছেয় রাখুন যেন বারবার চেয়ার টেবিল থেকে উঠতে না হয়। আর এভাবে যদি কিছু দিন চর্চা করে তাহলে আপনার অবশ্যই পড়াশোনায় মন বসবে।

 

৪. টারগেট বা মিশন সেট করে পড়াশোনা করা

পড়াশোনা করার সময় টার্গেট তৈরি করাটা অনেক জরুলী। আপনি কোন দিন কত ঘন্ট এবং কোন বইয়ের কত পৃষ্ট পড়বেন তার একটা টারগেট তৈরি করুন। আর এভাবেই আপনি আপনার পড়াশোনায় মন বসাতে পাড়বেন।

মোবাইলের গেইমে এক লেভেরে পর যেমন আরেক লেভেল, আর নতুন লেভেলে আসার পর দূর্ঘ সময় ধরে গেইম খেলেও বিরক্তি হয় না। ঠিক তেমনি পড়াশোনার বেলাও, ছোট ছোট টারগেট যখন সফল হবেন তখন আপনার উদ্দিপনা ও মনোযোগ বেড়ে যাবেন।

 

৫. যখন মনোযোগ বসে তখন পড়ুন

পড়াশোনার জন্য সঠিক সময় হলো সকাল ও রাত। কিন্তু পৃথিবীর সকল মানুষের মন আর চিন্তাধারা এক নয়। এছাড়াও সবসময় পড়াশোনা করতেও ইচ্ছে করে না। তার জন্য আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে।

যখন আপনার মন চাইবে তখন পড়তে বসতে হবে। কারণ ইচ্ছের বিরুদ্ধে কোনো কিছুই সম্ভব হয় না। সেই পড়াটা আপনি ৫ মিনিটেই মুখস্ত করতে পারবেন সেটি আপনার ৩০ মিনিটেও হবে না। আশা করি বিষয়টি আপনারা সকলেই বুঝতে পেরেছেন।

 

উপরের এই কয়েখটি নিয়ম যদি আপনি মেনে চলেন তাহলে অল্প দিনেয় আপনার পড়াশোনায় মনোযোগী হয়ে উঠবেন। প্রতিবেদনটি পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ-

 

উপসংহার

এই হলো আমাদের আজকের প্রতিবেদন আশা করি আপনার অনেক উপকারে আসবে। আপনি অথবা আপানার পরিবারের কেউ যদি পড়াশোনায় অমনোযোগী থাকে তাহলে উপরের এই উপায়গুলো ব্যবহার করে মড়াশোনায় মনোযোগ বাড়াতে পারেন।

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে প্রতিবেদনটি পড়ার জন্য আপনাকে অসখ্য ধন্যবাদ। আর নিয়ামিত শিক্ষার খবর পেতে হলে আমাদের এই ওয়েব সাইটের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ

About admin

In a world where you can have everything. Be a giver first. My hobbies are writing , gaming, and SEO 😊

View all posts by admin →

Leave a Reply

Your email address will not be published.